Way to wealth

This is one of the most interesting and intriguing topics that has eluded, so to speak, the sharpest minds since the dawn of human history. How to be rich?

There are many ways to be rich. I will share with you a few tips on how you can save money. They say, a penny saved is a penny earned. I have learnt these by carefully observing the habits of one of my friends, who has become rich at a very young age, referred to as Mr. J.

Table manners

There were about 10 of us assembled for lunch at a famous hotel. At the end of it, when the bill comes, its evenly split by 10. Mr. J grabs the bill quickly and raises his hand. He has a problem. He did not order the mineral water bottle costing around 10/- bucks. Why should he pay for it? So the Rs. 10/- is deducted from the entire amount and he pays the due. That’s our Daniel.

When lending money, remember…

The disadvantage of being rich is that you always have a few friends requesting bail outs, frequently. So our friend Mr. J lends this guy some 5,000/- bucks. Since he has transferred the amount to a different bank, his bank has charged him 10.5/- bucks towards service charge. Mr. J here meticulously mails the borrower to precisely give him back Rs. 5,010.50/-. The borrower, wrongly assumed that to be a harmless joke. So he returns Rs. 5,000/-, round. Immediately he gets a mail from J, “Man, you disappointed me, you gave me 10.5 bucks less”. Immediately the borrower transferred him the balance. Fair is fair.

Phone ethics

We have a common friend who regularly works out from 7:00-7:30 in the morning. Most of the days after getting back home, he used to see Mr. J had called. Obviously he used to call J back. One day, he was sick with fever. Mr. J calls him and he picks up the call. J gets the surprise of his life: he blurts out “Man, aren’t you supposed to work out now? How the hell did you pick up my call?”. Moral of the story: call people when you know they will never be able to attend your call. In fact, avoid calling your friends from your mobile phone if you can help. You can always peruse the office phone during the week days.

Disclaimer

If you follow this to the letter, no doubt your bank balance will increase. But do not blame me if your own wife calls you a cheapo or a miser in public.

Pyaasa: First impression

Its almost four in the morning and I just finished watching Pyaasa, the black and white classic by the late Guru Dutt.

Its a story about two women in love with the same man. Gulab (Waheeda Rehman) is a tantalisingly beautiful “Lady of the Night” stalking the streets of Calcutta of 1950s for a living. [Kareena Kapoor, go boil your head. Watch this movie for 50 times and you would know how to portray a prostitute. She need not be loud and vulgar like you. She can also be dignified and upright like Gulab. But you looked so convincing in Chameli as you played yourself. The only perfect role for you. Please do not create stereotypes.] And Meena (Mala Sinha) the beautiful wife of a rich publisher, who was also the college mate (and lover) of the brilliantly talented, but wretched, shayar (poet) Vijay (Guru Dutt). Of course, when it comes to marriage, her practical sense takes over her and she dumps Vijay in favour of the fat cat publisher Mr. Ghosh ( played by Rehman).

Gulab falls in awe of Vijay’s talent and falls madly in love with him. On the other hand Mala tries o come to terms with her unhappy marriage.

The editing and direction of this movie is superb. There is not a single instance of exaggeration. In a typical kotha (brothel) a mesmerising woman dances to the tune of music. The shrill cry of her baby is heard in the background. But she must dance on, for money, and satisfy the lust of her customers before she can attend to her sick child. Harsh realities of life. We, the hypocrite lot, who watch porn on our computers, do not realise this harsh reality. The ladies out there who writhe in ecstasy, do that because they are paid to do so, because they have mouths to feed. And not because they enjoy doing it. Given a choice, no one would ever be a prostitute, except the likes of certain (so called) Bollywood queens.

Superb music by SD Burman. What with “Jane Kya Tune Kahi”, “Hum Aapki Aankhon Mein”, “Jane Woh Kaise”, “Aaj Sajan Mohe”. The most touching song I guess is “Jinhen Naz Hai” by Rafi Sahab. Its an anti-establishment song adressed to the hypocrite ruling classes of India, read Jawaharlal Nehru, the greatest hypocrite India has ever produced. [His cursed dynasty is still ruining India. I can never forgive him for the humiliation suffered at the hands of fledgling China in 1962. India suffered a crushing defeat. It was entirely unnecessary and completely avoidable. There was no reason to save the hordes of eunuchs, and shelter their leader the Dalai Lama. People who cannot defend themselves should die like dogs. Lets face it.] I suspect some kind of a pro-Naxal feeling in this song. Its so refreshing to get this totally unflattering view of India during 50s. Most of the movies during that time used to praise the Government, Nehru, Congress, etc. etc. in the hope of getting some political mileage. I guess this is one of the boldest movie ever made with a totally anti-establishment sentiment. The protagonist Vijay does not have any complaints against the individuals. He does not blame Meena, the lover who dumped him for money, the brothers and friends who failed to recognise him for profit, or the fat cat publisher who cheats him. But he has a problem with the society and the system which creates such people, or rather forces people to act the way they do. It the clearest sign of an apathy towards how things were run in India during that time. And rightly so.

To conclude, an immensely watchable movie.

Hunger is the best sauce!

Agreed, but nothing like a good mustard sauce, our very own (Bengali) Kasundi, to stir the real hunger in you. You become a tiger on the table. [Its very up to you if prefer the table to a bed, as one of my friends does. Entirely personal and no arguments.]

Jokes apart, this is the one thing that we share with the Brits (or should I also include Europe in general?) with regards to the taste buds- the mustard sauce. My God. The sharp, pungent taste, the just right bitterness to it, tickles them to the just right degree. Be it the bland British dishes or the Bengali bhat (rice), the mustard is always there to make it more interesting. It braces you up for the daily ritual of hunger management and braces you like none other.

I dont know why I am calling this post the stuff that I am calling. I mean, I could easily have called it the “Ode to the Mustard Sauce” or something in  that vein, and still this article would be relevant.

This entire day was devoted to the pleasures of job hunting. Man, can’t tell you how exciting it all is. This is becoming an almost yearly ritual for me now, for the past 3 years, and I think, I could as well do with a lot less excitement in life. [As it is, my weekends are invariably as exciting as it gets, what with all old friends and a couple of goblets on the better side.] Had to attend a couple of grueling bouts of fencing, with the opponents baying for my blood. At last however, I succeeded in convincing the folks that I was the best deal that they could have for now. So they are happy and I am happy as well. The only small problem was that, two slices of bread, some grapes, a single egg and two narkel narus, not to mention a glass of lime juice, in the morning; and a coffee and a pair of sandwiches (by the courtesy of my recruitment HR) in the afternoon, were all that I ever had. As if I mind.

Dinner was sumptuous. Dal (lentils soup?), button mushroom on potato curry, with generous quantity of rice, with copious mix of Kasundi, and of course, ghee (Indian butter :)). By the way, did I tell you that the great Shila Da brought this bottle of Kasundi for me, all the way from Kolkata?

PS:

Its a real great relief to be writing this blog. I had been writing short quips on the goddamned Twitter. Its so irritating for vociferous people like us. What 140 characters nonsense!

চাণক্যর জন্ম

তখন ধন নন্দ মগধের অধীশ্বর৷ পশ্চিমে বিপাসা নদির থেকে সুদূর পূর্বে কলিঙ্গ অব্দি ওনার বৃহৎ সাম্রাজ্য৷ বিপুল ঐশ্বর্যের অধিকারি ও আর্যাবর্তের সব চেয়ে শক্তিশালী রাজা কে পৃথ্বীবিজয়ি আলেক্সান্ডার অব্দি ভয় করত৷ তৎসত্ত্বেও মহারাজের মনে সুখ নেই৷ স্বভাবতই তিনি লোভি, নিষ্ঠুর ও অত্যাচারী৷ প্রজাপ্রতিপালনের বদলে রাজ্যের সীমান্তবৃদ্ধিই মহারাজের ধ্যান জ্ঞ্যান৷ দেশের জনগণ ওনার অত্যাচারে অতিষ্ঠ৷ অমাত্যগন ওনাকে চাটুকথায় তুষ্ট রাখত, আর উচিত কথা যে বলত, তার ধর থেকে মাথা আলাদা হতে বেশী বিলম্ব হত না৷


তেমনই একজন অমাত্য ছিলেন রক্ষস৷ মহারাজ যে ক্রমশ মগধকে ধ্বংসের পথে নিয়ে যাচ্ছেন, সেটা উনি বুঝেছিলেন৷ তাই মহারাজ যখন ঠিক করলেন যে উনি বৈশালি আক্রমন করবেন, রক্ষসের সঙ্গে ওনার মতানৈক হল৷ রাজশভায় মহারাজের বিরুদ্ধে এর আগে কেউ কথা বলে নি৷ মহারাজ ধননন্দ যত না রেগে গেলেন, অবাক হলেন আরো বেশি৷ অন্য কেউ হলে হয়ত বা শুলে দিতেন৷ কিন্তু না, উনি ঠিক করলেন এত সহজ শাস্তি তে চলবে না৷


মগধের রাজধানী পাটলিপুত্রের পুরপ্রাকারের বাইরে, উত্তর ভাগে ছিল এক মহাশ্মশান৷ রক্ষসকে সেইখানে নিয়ে যাওয়া হল৷ মাটি খুঁড়ে ওনাকে ওখানে পোঁতা হল৷ শুধু মাটির ওপর ওনার মুণ্ডুটি বেড়িয়ে রইল৷ অভিপ্রায় টা হচ্ছে রাত্রি কালে মহাশশ্মানের শিয়াল কুকুর রা ওনাকে ছিঁড়ে ছিঁড়ে খাবে৷ প্রতিশোধ টা বেশ নিগূঢ় হয়েছে মনে করে সেদিন মহারাজ বেশ তৃপ্ত হলেন৷


কিন্তু বিধির অন্য বিধান৷ এই বিপদের ক্ষণে ও রক্ষস মাথা ঠাণ্ডা করে চিন্তা করলেন৷ এই পরিস্থিতি থেকে পরিত্রাণ পাবার কি উপায়? কিন্তু ভেবে কিছু কিনারা করতে পারলেন না৷ নানান কথা ভাবতে ভাবতে উনি হয়ত একটু তন্দ্রাচ্ছন্ন হয়ে পরেছিলেন৷ চমক ভেঙ্গে দেখলেন সন্ধ্যা হয়ে গেছে, ধুধু প্রান্তরে আঁধার ঘনিয়ে আসছে৷ জনমনুষ্যি কেউ কোথাও নেই৷ এদিকে গুটি গুটি পায়ে চারটে কদাকার শেয়াল ওনার মুন্ডুর চার পাশে ঘুর ঘুর করছে৷ ধমক দিলে খানিক দুরে যায়, কিছুক্ষণ পর আবার ফিরে আসে৷ সদন্ত বিকাশ করে আর ঘর ঘর বিশ্রী শব্দ করে৷ হঠাৎ বিদ্যুৎ চমকের মত একটা বুদ্ধি ওনার মাথায় খেলে গেল৷ আছে, উপায় আছে, এই নরক থেকে উদ্ধার পাবার৷ উনি দম বন্ধ করে রইলেন৷ এদিকে শেয়ালগুলর পরিক্রমার গণ্ডি ক্রমশ ছোট হচ্ছে৷ মনুষ্যমুন্ড থেকে কোন স্বর নির্গত না হওয়ায় তাদের সাহস বৃদ্ধি পেয়েছে৷ এক দুঃসাহসিক শেয়াল রক্ষসের গালে বসিয়ে দিল এক কামড়৷ রক্ষস অমনি সজোরে তার কান কামড়ে ধরল৷ শেয়াল মশায় পরলেন মহা ফাঁপরে৷ সে তখন প্রাণপণে তার সামনের দুটো পা দিয়ে বেগে মাটি খুঁড়তে লাগল৷ এই ভাবে কিছুক্ষণ চলার পর দেখা গেল যে রক্ষসের দেহের উপরি ভাগ মাটির বাইরে চলে এসেছে৷


শ্মশান থেকে নির্গত হয়ে মগধে ওনার মন টিকল না৷ তাছাড়া সেখানে ধননন্দের চর সর্বত্র৷ এবার ধরা পরলে নিশ্চিত মৃত্যুর৷ তক্ষশিলা যাওয়া স্থির হল৷ সেখানে তিনি লোকালয় থেকে দুরে এক নির্জন স্থানে, লোকচক্ষুর আড়ালে, প্রতিশোধের নিষ্ফল আশায় দিন কাটাতে লাগলেন৷


একদিন সকালে, মেঠো পথ ধরে তিনি বাড়ি ফিরতে ফিরতে এক অদ্ভুত দৃশ্যের সম্মুখীন হলেন৷ এক খর্ব, কুরূপ ব্রাহ্মণ পথের ধারে এক সরা গুড় নিয়ে ঘুরছে, আর শর গাছ দেখলেই ঝুঁকে পড়ে তার গোঁড়াতে খানিকটা করে গুড় লাগাচ্ছে৷ রক্ষস ভীষণ অবাক হলেন৷ ব্রাহ্মণকে প্রণাম করে তার এই কাজের অর্থ জিজ্ঞ্যেস করলেন৷ সে বলল যে সে এই পথ দিয়ে সকাল বিকাল যাবার সময় শর গাছের ধারাল পাতায় অনেক সময় তার পা ছড়ে যায়৷ তাই এই ব্যবস্থা৷ রক্ষস করজোড়ে বলল পণ্ডিত মশায়, ক্ষমা করুন কিন্তু আমি এখনো বুঝতে পারছি না শর গাছের গোঁড়ায় গুড় দিলে আপনার কাটা ঘায়ের কি ভাবে উপশম হবে?”৷ ব্রাহ্মণ হেসে ফেললে৷ বুঝলে না, এ অতি সরল৷ গুড়ের ঘ্রাণে পিঁপড়ের দল আসবে৷ আর তারা গাছের গোরা টিকে কুঁড়ে দেবে৷ তিন দিনের মধ্যে শর গাছটি শুকিয়ে যাবে৷রক্ষস এই তরুন ব্রাহ্মণের তীক্ষ্ণ বুদ্ধির প্রশংসা না করে পারলেন না৷ বাড়ি ফেরার পর ওনার কূটবুদ্ধির উদয় হল৷ ওনার নিজের বয়স হয়েছে৷ আজকাল বেশী পরিশ্রম ও করতে পারেন না৷ এই পরিস্থিতিতে মহারাজ ধননন্দর থেকে ওনার অপমানের শোধ নেওয়া ওনার পক্ষে অসম্ভব৷ কিন্তু যদি এই তরুণ ব্রাহ্মণ ওনার হয়ে প্রতিশোধ নেয়? হয়ত একটু কপটতার প্রয়োজন হবে৷ কিন্তু চেষ্টা করতে দোষ কি?


খোঁজ নিয়ে জানতে পারলেন যে গত কালের সেই ব্রাহ্মণ বিশ্ববিদ্যালয় রাজনীতি বিদ্যার বিশারদ বিষ্ণু গুপ্ত৷ তাঁর কুট বুদ্ধির জন্য লোকে তাকে কৌটিল্য বলে ডাকে৷ রক্ষস ঠিক করলেন ব্রাহ্মণকে কোন ভাবে পাটলিপুত্রের রাজশভায় প্রেরণ করতে হবে৷


কিছু দিনের মধ্যেই সুযোগ এসে গেল৷ ধননন্দ তার পুত্রের অন্নপ্রাশন উপলক্ষে এক সহস্র ব্রাহ্মণ ভোজন করাবেন, তারপর প্রত্যেককে একশটি স্বর্ণ মুদ্রা উপহার দিয়ে বিদায় দেবেন৷


রক্ষস একটি লোককে কিছু পয়সা দিয়ে মগধের কপট দূত সাজাল৷ কপট দূতের হাতে জাল চিঠি দেওয়া হল যার মধ্যে বিষ্ণু গুপ্তকে পাটলিপুত্র ভোজসভায় আহ্বান করা হল৷ ব্রাহ্মণ এত ছল চাতুরী বুঝলেন না, সরল মনে, হৃষ্ট চিত্তে পাটলিপুত্রের দিকে রওয়ানা দিলেন৷


বিশাল ভোজ শভা, বিপুল আয়োজন৷ ঢালাও অন্ন ব্যঞ্জন মিষ্টান্ন৷ মহারাজ নিজে দাঁড়িয়ে থেকে তদারক করছেন৷ বিষ্ণু গুপ্ত ভীষণ তৃপ্তি করে খেলেন ও মহারাজকে মনে মনে খুব আশীর্বাদ করলেন৷ বিদায় কালে সকলে মহারাজের নিকট নিজ নিজ পরিচয় দিচ্ছিলেন আর এক শত স্বর্ণ মুদ্রা নিয়ে পুলকিত হয়ে বিদায় নিচ্ছিলেন৷ যখন তক্ষশিলার বিষ্ণু গুপ্ত ধননন্দ কে নিজের পরিচয় দিলেন, ওনার সেই কদাকার রূপ দেখে মহারাজ হেসেই অস্থির৷ ব্যঙ্গ করে জিজ্ঞ্যেস করলেন ওহে কুৎসিত ব্রাহ্মণ, তুমি এখানে কার আমন্ত্রণে এসেছ? ওরে কে আছিস, এটাকে টিকি ধরে আমার প্রাসাদ থেকে বাহির করে দে৷সমস্ত লোকের সামনে এই ভাবে অপমানিত হয়ে বিষ্ণু গুপ্ত রাগে কাঁপতে লাগলেন৷ তিনি সেই মুহুর্তে নিজের শিখা খুলে ফেললেন৷ প্রতিজ্ঞা করলেন যে নন্দের বিনাশ না করে তিনি শিখা বাঁধিবেন না৷


পরের গল্প অত্যন্ত সংক্ষিপ্ত৷ বিষ্ণু গুপ্ত তক্ষশিলায় ফিরে গেলেন৷ অদূর ভবিষ্যতে তার সঙ্গে চন্দ্রগুপ্ত নামে এক তেজস্বী বালকের পরিচয় হল৷ সে এক অখ্যাতনামা নন্দবংশিয় রাজকুমারের জ্বারজ সন্তান৷ তাই সে রাজপুরী হতে বিতরিত৷ বিষ্ণু গুপ্ত তাকে নিজের শিষ্যত্বে গ্রহণ করিল৷


এই বিষ্ণু গুপ্তই পরে চাণক্য নামে ক্ষ্যাত হয়৷ বলাই বাহুল্য বিষ্ণু গুপ্ত পাঁচ বছরের মধ্যেই তার মহাপমানের পরিশোধ নিয়েছিল৷ তবে একটাই প্রশ্ন বার বার আমার মনে জাগে। রক্ষস না থাকলে কি অধ্যাপক বিষ্ণু গুপ্ত অর্থশাস্ত্রের বিখ্যাত লেখক চাণক্য হতে পারতেন? ঠিক জানি না৷

সনাতন ধর্ম কি, এবং কি নয়

প্রচুর সরকারি এবং বেসরকারি নথিতে Religion বলে যে পঙ্কতিটি পুরন করতে হয়, তাতে চিরকাল আমি Hindu লিখে এসেছি৷ লিখি, আর মনে মনে হাসি৷ আমাদের কাঁধে একটা বড় গুরুভার আছে৷ পাঁচ হাজার, নাকি দশ হাজার, নাকি তারো পুরানো? কেউ জানে না; আমাদের এই অতি প্রাচিন ধর্ম, শভ্যতা, কৃষ্টী৷ সেই অতী প্রাচীন অথচ চীর নবীন এই ধর্ম আমাদের একটা বিশাল ভার৷ তাকে বাঁচিয়ে রাখার, নতুন প্রজন্মকে তা তুলে দেওয়া৷ যেমন করে যুগ-যুগান্তর ধরে প্রাচীন মুনি-ঋষিরা বংশ পরম্পরায় আমাদের ধর্মের কত শুত্র, কত মন্ত্র শ্রূতি ও স্ম্রিতির সাহাজ্যে সচল রেখেছিলেন৷ তারা কিন্তু নিজেদেরকে কোনদিন হিন্দু বলতেন না৷

হিন্দু কথাটার ঊৎপত্তি নিয়ে প্রচুর মতভেদ আছে৷ তবে, যেটাতে সবাই একমত, তা হল, যবনরা ভারতে এসে ভারতবাসিদের প্রথম বলে হিন্দু৷ ভারতবাসিরা কবে থেকে নিজেদেরকে হিন্দু বলতে শুরু করে আমার জানা নেই৷ এই হিন্দু নামকরনের দুটি কারন হতে পারে৷ এক, ইন্দ্রের পুজারি হিন্দু৷ দুই, সিন্ধু নদির পরপারে যারা বাস করে, তারা হিন্দু৷ পন্ডিতরা সাধরণত দুইকেই মানেন৷ হিন্দু শব্দটা আসলে একটি তথাকথিত slang বা অপভ্রংশ৷ আমদের ধর্ম শনাতন ধর্ম৷ Its more like a way of life than religion in the Western sense. সংক্সৃতে ধর্ম মানে হচ্ছে গুণ বা Property৷ লোহার যেমন গুণ, চুম্বকের দ্বারা আকৃষ্ট হওয়া৷ তেমনি, আমাদের জীবনের ধর্ম হল এই সনাতন ধর্ম, তাতে সে নাস্তিক হোক, বা অধার্মিক হোক, সে মানুক, না মানুক, কিচ্ছু এসে যায় না৷ এটা মনুষ্য ধর্ম৷ পাশ্চাত্য মতে এই ধর্মের মানেটায় পুরো আলাদা৷ তাদের কাছে এটা বিশ্বাস৷ আমাদের কাছে এটা বিশ্বাসের থেকে অনেক উপরে৷ এটা আমাদের জীবনের পধ্যতি৷

“জন্মিলে মরিতে হইবে, মরিলে জন্মিতে হইবে”৷ No escape from this cycle of births and re-births, whether you deny this, believe this, or laugh at this, does not matter. Simply does not matter.

Nano pulls out of Bengal

Today, is a very sad day for Bengal. Our blue-eyed baby called Nano has suffered an unnecessary death.br /br /The nemesis called Miss Mamata Banerjee… an insane lady. I have followed her political career since 1996. She used to be in the Congress those days. In the election of April (or was it later?) 1996, there was a big traffic congestion somewhere in south Calcutta. A very normal phenomena, I suppose, except for a young man perched on the top of a white ambassador, a jerry can of kerosene to keep company, threatening to set himself on fire if his dear Didi (Elder Sister) did not sign on the nomination paper(for the elections). The dear Didi, on her part, not to be out matched by her dear brother, was wrestling with a Kashmiri Shawl. Excuse my expression, she wasnt exactly wrestling with the shawl, rather she was trying to strangle herself with it.br /br /This is our leader, our so called Agni Kanya, the Fire Daughter of Bengal. The Dr. Mamata Banerjee. There was a big hue and cry about her (self-proclaimed) PhD., though. But I can assure you, and you will find millons who attest, that she did obtain her PhD. from the a href=”http://www.ftiindia.com/newftii/index.html”Film and Television Institue, Pune/a, specialising in Drama. She put in lot of effort, and you can see her superb skills today on the Bengal political stage.br /br /I really admire her acting skills. The kind of statements she issues to the media. And the people cannot help but laud her for that. I mean they have to. India (and West Bengal) has had a long tradition of great comedians. Right from the days of Birbal, Gopal Bhanr through Mahmood, Johnny Walker, Robi Ghosh, Chinmoy, Bhanu… And, not to limit itself, it has now spilled over to the political scene. If the Biharis have their Lalu, बंगाल क्या पीछे रहेगा? Why, we have our own Mamata. Believe me, she is a great artist. I still remember the time I used to be in Calcutta, 1996/98, every morning she used to entertain us by her so many unique antics.br /br /But, for whatever reasons, I must admit, she was quite a phenomena even back then. She had something that attracted (and still does) huge youth following. The bloody fools, hardly in their 19s or 20s, jobless, penniless, hopeless, miserable, were ready to lay their lives for their dear Didi. And their dear Didi… well, never ever missed her opportunity. She somehow, always managed to keep herself in the limelight.br /br /I had once the great honour of attending one of this Lady’s meetings she was addressing on the eve of the General Elections 1997/98, the year Trinamool Congress broke away from the Congress. The venue was Purno Cinema, Asutosh Mukherjee Road, South Calcutta. It was just a stone’s throw from my hostel. It was about eight in the evening, the road was swelling with crowds, eager to catch a glimpse of Mamata, as always happens in her rallies. The great leader rises up in the dias, starts speaking. She is very eloquent, only if she could improve her accent a bit. I am not talking about her English here, suffice it to say that even kids speak better Bengali than her. Hearing her speak should convince anyone, that she is, in all fairnesss, only around less than a quarter educated. We do hope (in the name of God) she manages to become at least half-educated soon. I will not comment on her English, because, as a general agreement between friends, we covered our ears every time she spoke, or rather, attempted to speak, English. My ears were bleeding by the time she finished her speech. But the masses were ecstatic, and that what matters. This lady had something so loud about her, that I had an immediate revulsion towards her. I dont know why, there was something in her, her gait, or the way she carried herself… why, our Kaajer Maasi, our Cleaning Maid… even she was more presentable than Mamata.br /br /I will never forget this… before she eneded her speech, this cheap lady brings up a boy of around eight or nine on the dias. The boy make in front of the mike boldly, and dutifully started demanding a Park from his Jyoti Grandpa, where he could play. And on that day, I knew there are no depths to which this Lady wont stoop to gain cheap political mileage. I mean just think… politics is a very dirty game played between adults, for whatever reasons. Why corrupt a child’s innocence with it? Even horrible people like Priyanka Wadhera (or Gandhi?) did not do that yet, but I may be wrong. Possibly she did bring her kids in tow in Amethi once, but I do think they addressed a rally.br /br /And I am sad to say that I was damn right. See how this Dr. Mamata Banerjee has held the entire state of West Bengal to ransom. She has dragged West Bengal 50 years backwards, no exaggeration.br /br /Once our Sonar Bangla, is now a desert. Nothing ever happens there. Young people have to migrate to Noida or Bangalore for their bread, and few are lucky to get back. I, for instance, can never go back! I do not know any other state that has suffered this much… right from the days of the partition. She was split, her body and soul cut into two. From one Mahiruha, it was chopped off to two bushes of West Bengal and East Bengal. Then came the influx to refugees fleeing from the atrocities of the Muslims in East Bengal. The single state of West Bengal bore the brunt of the population of the whole Bengal. But there was still growth. Industries flourished. We had Bidhan Roy’s dream city of Durgapur. Education was par excellence. Our Presidency, IIT Kharagpur, was still the best in the country. While we migrated to Bangalore for studying Engineering, our Professors had done their masters from Calcutta.br /br /I am not trying to prove anything here. I am just stating the facts. And then came the Naxalite Movement. It is very sad that Mahatma Gandhi, whatever his short comings, had this great Gun, he followed what he preached. Not so with Charu Mazumdar. When our famous Colleges burnt in the hey dey of the Naxals, his children studied studiously in some US university, all the while, their great Daddy yelled at top of his lungs “Burn Colleges, Ban Education”.br /br /The repression was severe. An entire generation, the very cream of the Bengal society, all students, all intellectuals, all in their late teens, early adult hood, were killed like dogs. The police were indiscriminate and merciless. A common story goes like this. A van full of students, all suspected Naxalites, arrives at an open ground. Calcutta, in the seventies was lot spacious than now. The Seargent opens the doors. The confused group slowly gets down and is bundled in a line. The Constable prods them in their ribs, jestfully tells them, his tone like an indulgant father, “Guys, am letting you go this once. Make sure you do not create trouble in future. Now, before some one arrests you again, RUN”. The confused lot ran, well, they were FREEE. The whole ground reverbrates with sudden burst of gun fire. Next morning, the headlines announce, a group of Naxalite terrorist killed in encounter. They were trying to escape from the Police Van in which they were being carried. In this war against the Naxalites, either you were with them, or you were against.br /br /Such stories abound. I am not saying that the Naxalites were good either. They had their own share of violence too. I know of a particularly sad incident. A man had just harvested his field and his Morai was full. A Naxalite cadre came and demanded a sackfull from him. He asked him to seek alms elsewhere. The wife was preparing Payas for him in the kitchen. As she came with the dish, she saw her husband’s severed head lying near his arm chair. Refusing a cadre could cost you dear. They were feared everywhere. Caught between double pincers of the Police and the Naxalites, the common man suffered.br /br /The Naxalite movement had many ramifications. An entire generation of the highly intellectual Bengalis were lost for ever. The ones who remained were maimed and scarred for the rest of their lives, victims of the Police Interrogation with Third Degree. Some of them managed to limp on their crutches, other
s were not so lucky. Also, some of the honest cadres became suddenly rich and started big business. And the greatest political effect was the complete route of the Congress and the gradual rule of the Communist Left Front, who correctly managed to highlight the Naxalite phenomena to their political advantage.br /br /Then came a period which saw the quick rise of millitant unionism, closure of industries, lockout, a complete industrial meltdown in the state from the late seventies, to well into nineties, thirty odd years that West Bengal was (and continues to be) under the communists.br /br /My only regret here is that, when the turning point came, with even the Communists pushing for industrial development, and a very enthusiastic Chief Minister at the helm, we have Madame Mamata palying spoilsport.br /br /Well, I am not saying all that happened in Singur was fair. No, it never was. We know the high-handedness of the CPIM. There were atrocities and certain people do need to be brought to justice. Yes, I fully concur. People have been arm-twisted to part with their land. I agree. But, there could always be a compromise. And compromise does not happen if this insane Lady drwas a firm line and always sticks to her guns. How could the land from within the factory premises be returned? How can Madame Banerjee, inspite of her PhD (in drama), decide how much land is needed by the Tatas?br /br /I hope she has to pay for this in future. Though I am not particularly fond of the Communinsts, but, I will hope for the day when West Bengal will be ridden of this pest called Mamata. A sick lady. For God’s sake, why doesnt she get married and leave politics and other serious matter in the hands of those having a bit more sense? This lady is complete insane. She can do anything to keep staying in limelight. I think its time that we people get together and tell her that its time for her to retire and rid West Bengal of herself.br /br /After all that happened, now she is happily claiming that the Tata pullout was a “joint game plan” with Buddha. She is even surpassing herself. I mean, this is incredible. And the fact that she actually believes that people will buy that proves that she is completely lost her mind.br /br /I have jus one message for her:br /Madame Banerjee, please learn to speak Bengali properly, and then English, and then perhaps, think of leading Bengal. You are too ambitious. You always tried to be the CM… Remember how you quit the Union Cabinet in the NDA on very filmsy grounds? You cant fool us any more. We wont be conned by you. Why dont you take a longish break and try to get married. Though, I pity the man who marries you. And if you ever get married, please do not try to have kids. One Mamata is good enough, we dont want a whole dynasty.

যাত্রা শুরু

দাক্ষিনাত্যে পদার্পন

ঊচ্চ মাধ্যমিক সায়েন্স্ নিয়ে পাশ করলাম, বড়াবড়ই engineering পড়বার সখ ছিল, কিন্তু জয়েন্টে পাবার মুরদ ছিল না৷ অগত্যা পিতা তার অপদার্থ সন্তান কে লইয়া দাক্ষিনাত্যে, সঠিক ভাবে বলতে গেলে, কর্নাটকে এলেন৷আমরা ঠিক করেছিলাম যে কোন donation বা capitation fees দেব না৷ তায় গেলাম ভাটকালে৷ একটা Muslim Minority College আছে সেখানে, আমরা খবরের কাগজে বিজ্ঞাপন দেখে গিয়েছিলাম৷ কিন্তু আমাদের দুর্ভাগ্য [এখন বুঝি ওটা সৌভাগ্য], রাজ্য সরকার আর ম্যানেজমেন্টের মধ্যে কিছু Quota গোলযোগ লেগেছিল, আর ফয়সালা হতে দেরি হচ্ছিল৷ আমরা সপ্তাহ খানেক ওখানেই ঘাঁটি গারলাম, কিন্তু তাও যখন কোন সুরাহা হল না, বাবা বললেন, চল্ ব্যাঙ্গালোর৷

আমার বাবা হচ্ছে স্ট্রীট স্মার্ট বলতে যা বোঝায় তায়৷ দারুন ভাল sportsman, সুন্দর কবিতা আবৃত্তি করতে পারেন৷ আজ পর্যন্ত, শত চেষ্টা করেও আমি ইংরাজি গল্পের বই-এ বাবাকে হারাতে পারিনি৷বাংলার কথা না হয় নাই বললাম? আর বাবা হচ্ছে যাকে বলে dare devil৷ বাঙ্গলায় একটা কথা আছে, বাপ কা বেটা, সেপাই কা ঘোড়া, কুছ ভি নেহি তো থোরা থোরা৷ কিন্তু আমার সবথেকে বাজে শত্রুও বলতে পারবে না যে আমি এর একটাও৷ মাঝে মাঝে ভাবি, কেন যে আমি বাবার মত হলাম না? আমার মনে আছে, একবার বাবার সাথে হোস্টেলে যাচ্ছি, আমার হাতে একটা বেশ বড় স্যুটকেস৷ হাওড়া স্টেশন থেকে ১৮-বি ধরে খিদিরপুর যাব৷পেছনের দরজা দিয়ে ঊঠতে যাচ্ছি, মূর্তিমান কন্ডাক্টার কোথা থেকে হাজির৷ যমের মত পথ আগলে দাঁড়িয়ে বলে, এত ভারি ব্যাগ নিয়ে ওঠা যাবে না৷ আমি আমতা-আমতা করে কিছু বলতে যাব, তার আগেই পেছন থেকে বাবার কন্ডাক্টারকে এক ধমক, “চুপ, গরু কোথাকার”৷ বলে নিজেই স্যুটকেস নিয়ে ঊঠে গেল৷ কন্ডাক্টার কেমন একটা ভ্যাবাচাকা খেয়ে স্যুট করে কুট্টি মামার ভাষায় কাট-ডাউন৷

বাবার হাথ ধরে ব্যাঙ্গালোর

ব্যাঙ্গালোরের একটা নতুন কলেজের এক সেক্রেটারির সঙ্গে বাবার পরিচয় হয় তার আগের বছর, তখন আমি ক্লাস ইলেভেনে৷ লক্ষ্মীনারায়ণ এসেছিলেন গ্রেট ঈস্টার্নে নতুন কলেজের জন্য ছেলে যোগার করতে৷ আমার দুরদর্শী বাবা তখন তার সাথে দেখা করতে যায়, এবং লক্ষ্মীনারায়ণ বাবাকে বলেন যে পড়ের বছর উনি আমাকে consider করবেন৷তায় ওনার ভরসায় ব্যাঙ্গালোর চলে আসা গেল৷সে কি বাজে অবস্থা, ভাটকালে বিভত্স্য গরম আর ব্যাঙ্গালোরে ঠান্ডা৷ আমার জ্বর এসে গেল৷ ট্রেনে লোকশক্তি পার্টির [তখন রামকৃষ্ণ সবে পার্টি গঠন করেছে] এক ন্যাতার সাথে দেখা, কি যেন হেগড়ে৷বাবা প্রচন্ড আলাপি, কিছুক্ষণের মধ্যেই কথা, গল্প হতে লাগল, আমাদের কথা শুনে বলল, চিন্তার কোন কারন নেই, আমি বিনে পয়সায় হোস্টেলের ব্যবস্থা করে দেব, থাকার কোন খরচা লাগবে না৷ আমি আর বাবা মুচকি হাসলাম৷

ব্যাঙ্গালোর স্টেশনে নেমে চোখে ধাঁধা লেগে গেল৷ পরিষ্কার, পরিচ্ছন্ন, ছিম-ছাম৷ আর বেশ ঠান্ডা, একটা ভীষণ proffessional আবহাওয়া৷ আমরা আমাদের ট্রাস্ট অপিসে গিয়ে লক্ষ্মীনারায়ণের সাথে দেখা করলাম৷ সবকিছু সেইদিনই হয়ে গেল৷ একটা পয়সা donation ছাড়াই আমার admisssion হয়ে গেল৷ আমি আজো বলব, সে দিন লক্ষ্মীনারায়ণ ভদ্রলোকের মত কাজ করেছিলেন৷ কথা মত, কোন donation ছাড়াই ভর্তি নিয়েছিলেন৷তারপর উনি নিজে গাড়ি করে আমাদের হোস্টেলে নিয়ে গেলেন, সেই বিখ্যাত ফিফ্থ হোস্টেল৷

এই ফিফ্থ হোস্টেল জুড়ে প্রচুর কিংবদন্তি আছে, এর আসেপাসেই Backbenchers নামক বিখ্যাত বাঙ্গলা ব্যান্ডের শুরু৷
(ক্রমশ প্রকাশ্য)

The company blog

I have had the dubious distinction of working for, let me count, seven companies in the span of six years, starting from November, 2002. Well I will not name the names or give any reason for this kind of dynamic career, suffice it to say that the circumstances were, well, unavoidable.br /br /Let me recount some memorable moments with you. The events narrated here are not in chronological order.br /br /span style=”font-weight: bold;font-size:100%;” Comedy of errors/spanbr /br /Once upon a time…br /I had the good fortune of with working with a very sharp guy called Mr. Holmes. Of course that was his nick-name which he earned due to his passion of finding out facts as our famous detective from Baker Street did. His ways, though, were very different, anyway I will talk about that later sometime.br /br /Mr. Holmes also had this knack of giving a code-name (and, not to mention, it was always funny) for all his colleagues based on their nature. So, we had the Magarmuchh [Crocodile], Bhubhu or The Hutch Pup[this was because of his hair], the Crow, the evil Pagal Gilehri [the Mad Squirrel, not to be confused with the Super Squirrel, who was good], the Great Owl [I swear she looked like one], the Bandar [Monkey], the Jhansi Ki Raani [the Queen of Jhansi, as she was a bit of a warrior and was constantly at war with the Bhubhu] and so on. The best among the lot was, of course, our own Superstar. The bloke was our manager and looked more like a WWF wrestler.br /br /He was a constant entertainer. We spent long hours with copious cups of chaye and plates of delicious samosas in our canteen discussing and relishing his many antics. This, I hope you understand, was strictly between us, the lesser mortals, the so called span style=”font-style: italic;”developers/span. We firmly believed that the company employed him for the sole purpose of entertaining us and keeping our morale high, as we did not ever see him doing any work whatsoever. But this guy was good at heart, though, it later emerged that he spied for the Grandees of our company, the freaks who sit at top, hate to pay the employees, and speak with a bad accent with the clients. We had this model where the clients [read Gods] outsourced work to our company, and our company used to get rich billing the client hefty amounts with fictitious working hours for each of us. And when I tell you that the salary that we got was around 3% of the amount billed, you know why I had to quit [the legal term of course is span style=”font-style: italic;”absconded/span] after just eight months. Anyway, that’s beside the point. So this evil Mad Squirrel was our client. Technically he was a great guy, having an impressive 11 years of experience. He was one of those guys with whom you never fool around. Strictly business was the word. And if you so much as stray even an inch from the straight and the narrow [read process], he raised up a hell of an issue with the Grandees, threatening to pull the plug on the project, and, since this project was the Goose that laid Golden Eggs monthly, you get the picture.br /br /One day the Mad Squirrel comes running, takes the centre stage [he had the company remove all cubicles, so that we had only our monitors to duck], and starts a a href=”http://en.wiktionary.org/wiki/soliloquy”soliloquy/a [I always got this spelling wrong in my junior school], blasting our entire dev team in full steam. It seems that some maintenance work that should have been done daily, had not been done for the last couple of months. Closing his monologue and looking around to see the effect [he only saw some blank monitors staring at him, as we had taken shelter behind them long back] and picked up the Superstar, who happened to be the only one peering from his table. He had probably forgotten to duck due to the suddenness of the event [his reflexes were always rather slow] and was still blinking from the effect, perhaps thinking of taking the exit. The Squirrel yelled “And who is working on it?”. Now, our Superstar had no clue, as he was generally ignorant and indifferent of the going ons in the team. But being the fearless leader he was, he had to say something. “Everyone is working on it”, came his reply. The squirrel was so taken aback by this sudden repartee, that he called it a day, and without a word, picked up his laptop and slowly ambled towards the exit.br /br /We heaved a sigh of relief, our Superstar had yet again proved his mettle and saved our day.br /br /Thats it for today, have to prepare lunch now, I am famishing. And, stay tuned, more of the Superstar to come.

হ্যামলেটের দেশে

হ্যামলেটের দেশে

এ এক অদ্ভুত দেশ৷ যত দেখছি তত অবাক হচ্ছি৷ এদের মধ্যে ব্রীটীশদের মত নাক ঊঁচু ব্যাপারটা নেই৷
এরা ভীষন easy going ৷ আমার মনে হয় তার একটা কারণ এই যে এদের দেশ এত বেশি ঊন্নত, যে এদের সামনে কোন রকম বড় challenge নেই৷ এই জায়গাটাও ভারি সুন্দর৷ এখানে গাড়ী গুলোর left-hand-drive, মানে ভারতে গাড়ীর চালক বসে ডান দিকে৷ এখানে বসে বাঁ দিকে৷ ব্যাপারটা বেশ confusing ৷ মনে হয় রাস্তার উল্টো দিক থেকে গাড়ি আসছে৷ এখানকার বেশির ভাগ রাস্তার তিনটে ভাগ আছে :
১> গাড়ির জন্য
২> সাইকেলের জন্য
৩> হাঁটবার জন্য footpath
এখানে প্রচুর লোক সাইকেল ব্যবহার করে৷ এরা সাইকেল কে bike বলে৷ আমার ম্যানেজার বলছিল যে ও এখানকার এক মন্ত্রী কে সাইকেল চালিয়ে যেতে দেখেছে৷ আমাদের ওখানে মন্ত্রীদের convoy- এ কতগুল গাড়ি আছে তাই দিয়ে হিসাব করা হয় কে কতবড় হনু৷ মায়াবতি একের পর এক নিজের মুর্তী করিয়ে যাচ্ছে, কটি-কটি সরকারি টাকা খর্চা করে, আর কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে দাবি রাখছে যে তার z category security বাড়িয়ে z+ category করা হোক৷

এদের এখানে tap- এ যে জল supply করা হয়, সবাই সেই জলই খায়৷ এখানে public transport
ভীষণ ভাল৷ যে বাস গুল চলে, সবই volvo ৷ সাধারন বাস দেখিনি৷ বাসের ভাড়া যদিও
কিঞ্চিত্ বেশি৷ traffic jam একেবারেই নেই৷ লোকেরা প্রচন্ড আইন মেনে চলে৷ এখানে
হাঁটা পথে রাস্তা পার হতে গেলেও traffic light মেনে চলতে হয়৷

এক দিন রাস্তা হারিয়ে ফেলে একজন লোককে জিগেস করছি, সে বলতে পারল না৷
খানিক দুরে আর একটা লোক, তার হাতে এত্ত বড় এক ফুলের তোরা, আমায় নিজের থেকে বলল : তুমি ইন্ডিয়া থেকে এসেছো? আমি হ্যাঁ বলাতে জিগেস করল ইন্ডিয়ার কোথায়? বললাম ব্যাঙ্গালোর, সে বলল, আমিও ব্যাঙ্গালোর গেছি : “প্রশান্টী-নিলায়াম”, আমি বুঝলাম, নিশ্চয় সত্য সাই বাবা৷ বলে, হ্যাঁ, সে আট-চল্লিশ বার ওখানে গেছে, যখন বাবা ডাকে, তখন যেতেই হয়৷ আমায় জিগ্যেস করল তুমি কি কৃষ্ণ কে মানো? তারপর সে আমাকে বিশদ ভাবে রাস্তাটা বোঝাল৷ আমি তাকে প্রচুর ধন্যবাদ-টাদ দিলাম৷ এখানে এখন ঠান্ড খুব একটা নেই, তবে বেশ জোরে হাওয়া দেয়, আর প্রায় বৃষ্টি পরে৷ তবে এখানে ইংল্যান্ডের থেকে বেশি সূর্য্য ওঠে৷ এখানে সকাল হয় ৫:০০-৫:৩০৷ আর সন্ধ্যা হয় ৮:৩০-৯:০০৷ আমার ব্যাপারটা বেশ অদ্ভুত লাগে৷ আমি আজকাল ৭:৩০ উঠে তারাতারী অফিস যাই৷ এখানে বিকেল ৫:৩০-র পর আর কেউ অফিসে থাকে না৷

এখানে লোকজন যে কি পরিমানে স্যালাড খায়, না দেখলে বিস্বাস করা যাবে না৷ অনেক সময় গরুর জাবরের মত মনে হয়৷ স্যালাডের মধ্যে কাঁচা বাঁধা-কপি, ব্রক্কোলী, নটে সাকের মত একটা সাক, এই সব প্রচুর পরিমানে থাকে৷ আমাদের অফিসে সবসময় দু-তিনটে ঝুড়িতে কলা, আপেল, পীচ, ন্যাশপাতী রাখা থাকে৷ আমার তো এখানকার লাঞ্চটা ভীষণ ভাল লাগে৷ দুদিন ভাতও দিয়েছিল৷ আমাদের চালের তিন গুন মোটা আর লম্বা চাল৷ একটু শক্ত থাকে, বেশি চিবাতে হয়, মোটের ওপোর খেতে খারাপ না৷ প্রচুর সুস্বাদু মাখন আর চীজ থাকে৷ চীজের আবার অনেক রকমফের আছে৷ আমি কম করে চার রকম দেখলাম৷

আশাকরছি ব্যাঙ্গালোরে সুস্থ অবস্থায় মাস-খানেকের মধ্যেই ফিরবো৷
কিছু ফোটো তুলেছি:
http://picasaweb.google.com/paawak/DenmarkVisit#
http://picasaweb.google.com/paawak/OdeToWillow#

কর্ত্রীপক্ষ দায়ী নয় [Disclaimer]…

These are the reflection of the ever flowing, dynamic, ever changing river of thoughts called “mind”. So, these might not necessarily be my views… it is, at best, the momentary reflection of a flickering image of my state of mind at the given instant, a tiny point on the vast, irretrievable scale which we call time.

More precisely:
মহা কালের গতির মাঝে ছোট্ট এক ক্ষণিকের মনের প্রতিবিম্ব৷ এটা অনেকটা একমুঠো নদির জলের মত৷ হাত দিয়ে ঠিক ধরা যায় না৷ নদির মধ্যে থেকে তুলে আনলে হাতের তালুর ফাঁক দিয়ে গলে জায়৷ ভাবতে আবাক লাগে যে এই জলই কিছুক্ষণ আগে একটি বৃহত জলধারার অঙ্গ ছিল৷ আমি এই বৃহত্তর জলধারার একটা বিবরনি আঁকতে চেষ্টা করব৷